ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ, ২০২২

“রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরো দেবো।
এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ্।
এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম,
এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।”

আজ ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ। ১৯৭১ সালের এইদিনে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে(বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) বিশাল এক জনসমুদ্রের সামনে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর এই ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান করেন। ভাষণটিতে তিনি বাঙালিদের স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান। যে ভাষণে উজ্জীবিত হয়ে বাঙালি শক্ত হাতে দমন করেছিলো পাকিস্তানি সেনাদের, ছিনিয়ে এনেছিলো বিজয়, আমাদের স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক এই ভাষণই ছিলো স্বাধীনতা যুদ্ধে, নিজেদের প্রাপ্য অধিকার আদায়ে বাঙালির মূল প্রেরণাশক্তি। ১৮ মিনিট স্থায়ীত্বের এই ভাষণটিকে ২০১৭ সালের ৩০শে অক্টোবর ইউনেস্কো বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য (ডকুমেন্টারি হেরিটেজ) হিসেবে স্বীকৃতি দেয়, জাতি হিসেবে যা আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের। ভাষণটিকে এখনো পর্যন্ত মোট ১৩টি ভাষায় অনুবাদ করা হয়। এছাড়া বাংলাদেশের সংবিধানেও ভাষণটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
রাষ্ট্রীয়, জাতিগত ও রাজনৈতিক সবদিক থেকে ভাষণটি অনেক গুরুত্ব বহন করে। শুধুমাত্র কথার মাধ্যমে, একটি পুরো জাতির মাঝে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছড়িয়ে দিয়েছিলেন এক শক্তিশালী বার্তা। যা উদ্দীপিত করেছিলো সমগ্র জাতিকে, যার ফলশ্রুতিতে সমগ্র জাতি এক হয়ে নেমেছিলো যুদ্ধে, মোকাবিলা করেছিলো সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে এবং বিজয়ের মাধ্যমে ছিনিয়ে এনেছিলো চূড়ান্ত সার্থকতা। আজ ৭ই মার্চে আমরা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি স্বাধীনতা সংগ্রামের নেপথ্য কারিগর, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে; যাঁর অবদান চিরস্মরণীয়। বাঙলার প্রতিটি মানুষের মনে আরও মুজিবের জন্ম হোক এবং সমগ্র জাতিকে নিয়ে সংঘবদ্ধ হয়ে বাঙলা রাখুক অপশক্তিমুক্ত – আজ ৭ই মার্চে এটাই KIN এর প্রত্যাশা।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin

Leave a Comment

Your email address will not be published.