আজ ২৩ এপ্রিল, বিশ্ব বই দিবস

আজ ২৩ এপ্রিল, বিশ্ব বই দিবস। দিবসটির পুরো নাম ‘World Book and Copyright Day’ ; বিশ্ব পুস্তক এবং মেধাস্বত্ব দিবস (সংক্ষেপে, বিশ্ব বই দিবস)।

ইউনেস্কোর উদ্যোগে ১৯৯৫ সাল থেকে প্রতিবছর বই পড়ার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা, বইয়ের মুদ্রণ এবং বইয়ের স্বত্বাধিকারের বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ২৩শে এপ্রিলকে ‘বিশ্ব বই দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়ে আসছে।
 
বই হচ্ছে জ্ঞানের ভান্ডার, আলোর পাথেয়। সে আলোয় আমাদের অতীত, বর্তমান এবং ভবিষ্যতকে উদ্ভাসিত করার বিরল ক্ষমতা রয়েছে বইয়ের। বই হচ্ছে মস্তিষ্কের খাদ্য; আমাদের চিন্তাশক্তি বৃদ্ধির, সেই সাথে ব্রেনকে কর্মক্ষম ও সৃষ্টিশীল রাখার অন্যতম হাতিয়ার। বইয়ের কল্যাণেই আমরা সকল দুঃখ, হতাশাকে পিছনে ফেলে মিশে যেতে পারি কল্পনার রাজ্যে, জানতে পারি অজানাকে, দেখতে পারি সুদূর ভবিষ্যত কিংবা বিগত অতীতকে। সাহিত্য কিংবা জ্ঞান- বিজ্ঞানের শত সহস্র অজানা রহস্য আমরা খুঁজে পাই বইয়ের এক একটি স্বর্ণপাতায়। বই পড়ার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা তাই অপরিসীম।

বর্তমানের আধুনিক বিশ্বে ডিজিটাল বই/ বইয়ের সফট কপি অহরহ পাওয়া গেলেও কাগজে ছাঁপা বইয়ের রয়েছে তার চিরাচরিত কদর। ছাঁপা বই স্পর্শ করার মধ্যেই রয়েছে এক অন্যরকম অনুভূতি। নতুন বইয়ের ঘ্রাণ, প্রচ্ছদ, প্রতিটা পাতা উল্টানোর যে অনুভূতি তা অবর্ণনীয়। বইয়ের প্রতিটা পাতায় পাতায় যেনো এক একটা সাহিত্য রচিত। সেই সাথে পুরাতন বই অতি যত্নে সংরক্ষণ করে রাখার মধ্যেও থাকে অন্যরকম আনন্দ, থাকে আমাদের স্মৃতি বিজরিত অসংখ্য সোনালি অতীত।

এই সুন্দর স্মৃতি বিজরিত লেখাগুলোকে যাতে কেউ অন্যায়ভাবে নিজের বলে চালিয়ে দিতে না পারে, অনুমতি ব্যতীত ব্যবহার করে যাতে আর্থিকভাবে লাভবান না হতে পারে সেজন্য স্রষ্টার সৃষ্টির সুরক্ষাস্বরূপ আসে মেধাস্বত্বের প্রয়োজনীয়তা। এতে যেকোনো সৃজনশীল সৃষ্টি, যেমন- সুর, গান, ছবি, গল্প, উপন্যাস, কবিতা, স্থাপত্য প্রভৃতি অন্তর্ভুক্ত। এ ব্যাপারে আমাদের নিজেদেরও সচেতন থাকতে হবে এবং সবাইকে সচেতন করতে হবে।

মূলত, লেখক-পাঠক-প্রকাশকের মধ্যে সম্পর্ক আরো নিবিড় করতে এবং বই পড়া ও বইয়ের মেধাস্বত্বের গুরুত্ব সম্পর্কে সকলকে সচেতন করাই হচ্ছে বিশ্ব বই দিবসের মূল লক্ষ্য। আমরা সকলে বেশি বেশি বই পড়বো, অন্যদেরকেও বই পড়তে উৎসাহিত করবো এবং জ্ঞানের আলোয় আলোকিত করবো পৃথিবী- বিশ্ব বই দিবসে এই হোক আমাদের অঙ্গীকার। বইয়ের সাথে সম্পৃক্ত সকলকে জানাই বিশ্ব বই দিবসের শুভেচ্ছা।
 
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn

Leave a Comment

Your email address will not be published.